আয়ুর্বেদ চিকিৎসা

‘আয়ু’ শব্দের অর্থ ‘জীবন’ এবং ‘র্বেদ’ শব্দের অর্থ ‘জ্ঞান বা বিদ্যা’।’আয়ুর্বেদ’ শব্দের অর্থ ‘জীবনজ্ঞান বা জীববিদ্যা’. অর্থাৎ‍ যে জ্ঞানের মাধ্যমে জীবের কল্যাণ সাধন হয় তাকে আয়ুর্বেদ বা জীববিদ্যা বলা হয়। আয়ুর্বেদ চিকিৎসা বলতে ভেষজ বা উদ্ভিদের মাধ্যমে যে চিকিৎ‍সা দেয়া হয় তাকে বুঝানো হয়। এই চিকিৎ‍সা ৫০০০ বছরের পুরাতন। আদি যুগে গাছপালার মাধ্যমেই মানুষের রোগের চিকিৎসা করা হতো। এই চিকিৎসা বর্তমানে ‘হারবাল চিকিৎসা’ তথা ‘অলটারনেটিভ ট্রিটমেন্ট’ নামে পরিচিতি লাভ করেছে। বর্তমানে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তানে এই চিকিৎসা বেশী প্রচলিত। পাশাপাশি উন্নত বিশ্বেও এই চিকিৎসা ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। কারন মর্ডান এলোপ্যাথি অনেক ঔষধেরই SIDE EFFECT বা পার্শ প্রতিক্রিয়া রয়েছে। যেমনঃ Antibiotic ঔষধ সিপ্রোফ্লক্রাসিন, ফ্লুক্লক্রাসিলিন, মেট্রোনিডাজল, ক্লক্রাসিলিন প্রভৃতি ঔষধ রোগ সারানোর পাশাপাশি মানব শরীরকে দুবর্ল করে ফেলে এবং দীর্ঘদিন ব্যবহারের ফলে স্মৃতিশক্তি, যৌনশক্তি, কর্মক্ষমতা কমে যাওয়ার ইতিহাস পাওয়া যায়।
আদিযুগে গাছপালার মাধ্যমেই মানুষের রোগের চিকিৎসা করা হতো। এই চিকিৎসা বর্তমানে ‘হারবাল চিকিত্‍সা’ তথা ‘অলটারনেটিভ ট্রিটমেন্ট’ নামে পরিচিতি লাভ করেছে। নিম্নে পাঠক-পাঠিকার উপকারার্থে কতিপয় SINGLE বা একক হারবাল ঔষধের গুনাগুন তুলে ধরা হলো। আশাকরি সবাই এথেকে উপকৃত হবেন।এরপরেও উপকার না পেলে অর্থাৎ রোগের তীব্রতায় কোন রেজিষ্টার্ড হারবাল চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারেন।

গাছপালার গুনাগুন তথা কতিপয় হারবাল চিকিৎসা:
যারা বেশীক্ষণ অজু রাখতে পারেন না: তাদের জন্য জীরাভাঁঙ্গাচূর্ণ ১ চা-চামচমাত্রায় ২ বেলা আহারের পর সেব্য। এতে বদহজমেও উপকার পাবেন।
Continue reading “আয়ুর্বেদ চিকিৎসা” »